মাহির দুঃখপ্রকাশ, ফের পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ

  বিশেষ প্রতিনিধি    19-03-2023    39
মাহির দুঃখপ্রকাশ, ফের পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ

চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি বলেছেন, ‘আমি লাইভে পুলিশের বিরুদ্ধে বলে ভুল করেছি। একজন পুলিশ কমিশনার আমাদের পুলিশ প্রশাসনকে রিপ্রেজেন্ট করে। তাই আমার লাইভে বলাতে পুরো বাংলাদেশের পুলিশ প্রশাসনকে বিতর্কিত করেছে হয়তো। আমি সেটার জন্য দুঃখিত, আমি দুঃখ প্রকাশ করছি। আমি যে দেড় কোটি টাকার কথা বলেছি, সেটা অবশ্যই তদন্ত হবে। আমি ন্যায় বিচারের জন্য সবার কাছে যাব। আমি অন্যায় করে থাকলে শাস্তি মাথা পেতে নিব।

আজ শনিবার রাতে জামিনে কারামুক্ত হয়ে গাজীপুর মহানগরের তেলিপাড়া এলাকায় তাদের ‘ফারিশতা রেস্টুরেন্ট’র সামনে সংবাদ সম্মেলন করেন মাহিয়া মাহি। এসময় তার এক মামা ও আইনজীবীরাও উপস্থিত ছিলেন।

মাহি বলেন, ‘আমাকে যখন প্লেন থেকে নিয়ে আসল ইমিগ্রেশন পুলিশ আমার সাথে কাউকে কথা বলতে দিল না, আমার মামাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়া হয়েছে। আমি যখন রাস্তা দিয়ে আসছি, গাজীপুরের পুলিশ তারা ওয়্যারলেসে কথা পর্যন্ত বলছিল না। কারণ ওয়্যারলেসে কথা বললে যদি অন্যরা আমার লোকেশন পেয়ে যায়।’

তিনি বলেন, ‘আমি কী এতো বড় আসামি হয়ে গেছি? আমি তো এত বড় আসামি না। আমি লাইভে একজনের বিরুদ্ধে কথা বলেছি, সে ডিজিটাল আইনে মামলা করেছে, আমি সেটার আসামি। কিন্তু আমি তো কোনো রাষ্ট্রদ্রোহী না। আমি অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলেছি মাত্র।আমি সবকিছু নিয়ে ভীত সন্ত্রস্ত। আমি মাহিয়া মাহি একটা পরিচিত মুখ হওয়ার পরও আমার সাথে মানসিক নির্যাতন করা হয়েছে। আমি বার বার বলছিলাম প্রচণ্ড গরম লাগছে, আমার শ্বাসকষ্ট হচ্ছে, আমি ঠাণ্ডা পানি চাচ্ছিলাম, পুলিশ আমাকে এক ঘণ্টা পরে পানি দিয়েছে। এতো কিসের গোপনীয়তা? আমি তো এরকম কোনো আসামি না।’

চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি বলেন, ‘আমি মাহি হয়েও আজকে আমার সাথে যা হয়েছে, আমি ৯ মাসের প্রেগনেন্ট হওয়ার পর আমি যে মানবিকতা পাইনি, আমার স্বামীর বিরুদ্ধেও এ মামলা আছে। আমি আমার স্বামীর নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত। আমাকে যখন কোর্টে নেওয়া হয়েছে। কোর্টে নেওয়ার পরে জাজ তো আমাকে কিছু জিজ্ঞেস করবে, তার কিছুই করেননি।’

তিনি বলেন, ‘আমি আগেই বলেছি, আপনি যখন সর্বোচ্চ অসহায় থাকবেন, আপনার জায়গা জমি নিয়ে একজন চলে যাচ্ছে। আপনি এটা নিয়ে বহুদিন ধরে লড়াই করতেছেন, যখন আপনি এটার কোনো ন্যায় বিচার পাবেন না। তখন আপনি কী করবেন? আপনি কাকে বিচার দিবেন, আমি বিচার পাই নাই। আমি একমাস ধরে ঘুরতেছি। একমাস ধরে সব জায়গায় অভিযোগ দিয়েছি। আমি অভিযোগ করার পর সে (পুলিশ) আরও বেপরোয়া হয়ে গেছে। সে বেপরোয়া হয়ে ৯ মাসের প্রেগনেন্ট একটা মহিলাকে সেই এয়ারপোর্ট থেকে মনে হচ্ছে যুদ্ধাপরাধী ধরে নিয়ে আসছে। একটা ঠাণ্ডা পানি দেওয়ার জন্য এক ঘণ্টা লাগছে এবং আমি শ্বাসকষ্টের রোগী বলছি। আমার শ্বাসকষ্ট হচ্ছে, তারা এটার কোনো তোয়াক্কা করে নাই। আমাকে সেইভাবে ট্রিট করা হয়েছে। তাহলে বুঝেন এই লোকটা (পুলিশ কমিশনার) কতটুকু বেপরোয়া হয়ে গেছেন। এর বিরুদ্ধে আমি কী করবো? যখন দেখতেছি আমার জায়গা নিয়ে চলে যাচ্ছে একজন লোক, তখন আমি দেশে নাই, দেশে থাকলে আমি সামনে গিয়ে দাঁড়াতে পারতাম, সামনে গিয়ে আমি ফাইট করতে পারতাম। তখন হয়তো ফাইট-মাইট করে মামলা হতো। সেটা তো করার সুযোগ নাই। তখন আমি কী করবো, লাইভে না যেয়ে আমি কী করবো। আমি লাইভে যাওয়ার আগে বারবার কমিশনারকে ফোন দিয়েছি। কিন্তু তিনি আমার কোন কথা আমলে নেননি।’

পুলিশ জমি দখলের কথা বলে প্রতিপক্ষের কাছ থেকে দেড় কোটি টাকার ঘুষ নেওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘পৃথিবীতে কিছু কিছু বিষয় আছে যেটা আপনি আসলে আপনি নিজে উপলদ্ধি করবেন আপনি নিজে জানবেন। কিন্তু এসব বিষয়ে অনেক সময় আলামত থাকে না। আমি সামান্য জিডি করতে পারি নাই। জিডি করতে যখন গেছি তখন আমাকে থানা থেকে বলা হয়েছে ডিসি’র কাছে পারমিশন নিতে হবে। আমি যদি জিডি করতে না পারি, আপনি গিয়ে কিভাবে তা পারবেন একজন সাধারণ মানুষ হিসেবে।’

মাহি বলেন, ‘আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহেবের সঙ্গে কথা বলবো, তার কাছে আমার আইজীবীরা যাবেন, কথা বলবেন। তারাই ওই টাকার সত্যতা বের করবেন। আমি লাইভে টাকা নেওয়ার কথা বলে ভুল করেছি। যেহেতু পুলিশ কমিশনার আমাদের পুলিশ প্রশাসনকে রিপ্রেজেন্ট করে। আমার লাইভে তার টাকা নেওয়ার কথা বলাটা পুরো বাংলাদেশের পুলিশ প্রশাসনকে বিতর্কিত করেছে হয়তো। আমি সেটার জন্য দুঃখিত, আমি অত্যন্ত দুঃখ প্রকাশ করছি। কিন্তু আমি যে কথাটা বলেছি, দেড় কোটি টাকার কথাটা বলেছি, সেটা নিয়েও তদন্ত হোক, নিশ্চয়ই আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তিনি হচ্ছেন ন্যায় বিচারের পক্ষে, সে যেই হোকনা কেন, কমিশনার হোক, আর যেই হোক না কেন। আমি যদি অন্যায় করে থাকি আমাকে শাস্তি দিবে, আমি সেই শাস্তি মাথা পেতে নেব। আমি যেটা বলেছি, লাইভে গিয়ে ওইসব কথা বলে ভুল করেছি। আমি সেটার জন্য দেশবাসীর কাছে সরি।’

1

বিনোদন-এর আরও খবর